মানুষকে হ্যাপি রাখার চেষ্টা করে হ্যাপি নাটোর

আজ ১৬ ই ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবস। দিবসটি উপলক্ষে প্রতিবার নানারকম কর্মসূচি গ্রহণ করে সেছাসেবী সংগঠন হ্যাপি নাটোর। এবারেও তার ব্যাতিক্রম হয়নি। মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে হ্যাপি নাটোর এর অবলম্বন কর্মসূচির পক্ষ থেকে নাটোরের সিংড়া উপজেলার হাতিয়ান্দহ ইউনিয়নের গুনাইখাড়া গ্রামের কিশোরী প্রামানিক এর হাতে তুলে দেওয়া হয় একটি অবলম্বন স্টোর।

আজ বেলা ১২.৩০টায় ভার্চুয়াল এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দোকানটির শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী এ্যাড. জুনায়েদ আহম্মেদ পলক এমপি। এসময় তিনি সেচ্ছাসেবী সংগঠন হ্যাপি নাটোর এর এমন একটি উদ্যোগের প্রশংসা করেন। তিনি বলেন নাটোরে হ্যাপি নাটোর সবার হ্যাপিনেসে কাজ করে যাচ্ছে।

এরপরই মাননীয় প্রতিমন্ত্রী মহোদয়ের পক্ষ থেকে ফিতা কাটেন হাতিয়ান্দহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুব উল আলম, সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ড কমিশনার পূর্ণিমা রাণী এবং হ্যাপি নাটোর এর সদস্যবৃন্দ।

অবলম্বন হ্যাপি নাটোর এর একটি বিশেষ কর্মসূচি। এই কর্মসূচির আওতায় সমাজে অসচ্ছল, দরিদ্র ব্যাক্তিদের তাদের সক্ষমতা অনুযায়ী কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হয়। প্রত্যেক মানুষের নিজ নিজ দক্ষতা থাকে। অনেক সময় অর্থ,

সুযোগ এবং সাহসের অভাবে সেই দক্ষতাকে কাজে লাগানো সম্ভব হয়না। হ্যাপি নাটোর সেই দক্ষতাকে কাজে লাগাতে এবং পাশে থেকে আত্মকর্মসংস্থানের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হতে সাহস জোগায়। সেই সাথে যথাসাধ্য উপকরণ বা অর্থ সহায়তা করে থাকে। ইতিপূর্বে হ্যাপি নাটোর ৩ টি অবলম্বন স্টোর করেছে। আজ মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে ৪র্থ স্টোরটি উদ্বোধন করা হয়।

নাটোরের সিংড়া উপজেলার গুনাইখাড়া গ্রামের কিশোরী প্রামানিক। শারীরিক প্রতিবন্ধী এই মানুষটি স্ত্রী এবং একটি কন্যা সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করতেন। গতবছর কাকতালীয় ভাবেই তার সাথে সাক্ষাৎ হয় হ্যাপি নাটোর

এর। সহযোগিতা নিতে তিনি গিয়েছিলেন জেলা প্রশাসক এর কার্যালয়ে তখনই হ্যাপি নাটোর এর সভাপতি মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানের সাথে তার সাক্ষাৎ হয়। মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান তার সাথে কথা বলেন। এরপরেই হ্যাপি নাটোর

এর পক্ষ থেকে উনার পরিবারকে বিভিন্ন সহযোগিতা করা হয়। উনাকে স্বাবলম্বী করতে হ্যাপি নাটোর কর্তৃপক্ষ পরিকল্পনা করে একটি দোকান করে দেবার। কিশোরী প্রামানিক এর সম্মতিতে ৪ নং অবলম্বন স্টোরটি করা হয়।

হ্যাপি নাটোর এর সভাপতি মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান জানান অবলম্বন কর্মসূচির প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে দরিদ্র মানুষদের কর্মসংস্থানের মাধ্যমে স্বাবলম্বী করা। আজ মহান বিজয় দিবস। আজকের এই দিনে দেশে বিজয় অর্জন হয়েছে। তাই মহান এই দিবসে একটি ভালো কাজ করলো হ্যাপি নাটোর। একজন অসহায় মানুষকে বেঁচে থাকার অবলম্বন তুলে দেওয়া হলো।

অবলম্বন স্টোর পেয়ে অনুভূতি জানাতে গিয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে যায় কিশোরী প্রামানিক। তিনি বলেন দুর্বিসহ এক জীবনযাপন করছিলেন তিনি। আজ হ্যাপি নাটোর এর উপহার একটি দোকান পেয়ে নতুন করে স্বপ্ন দেখছেন তিনি। এসময় তিনি হ্যাপি নাটোর এর সকল সদস্যদের জন্য দোয়া করেন।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*